Header Ads

বৈদ্যুতিক গাড়ীঃ এক হারানো প্রযুক্তি

ইদানিং মার্কিন টেক জায়ান্ট 'টেসলা'র গাড়ী ও অন্যান্য নিত্যপ্রয়োজনীয় পণ্যের ইলেট্রনিক ভার্সন দেখে আমরা চমকাচ্ছি যেমন সিইও এলন মাস্কের ঘোষণা দেওয়া টেসলা থ্রী মডেলের গাড়ী, ট্রাক, স্পোর্টস কার ইত্যাদি। টেসলার এই কাজ মূলত পেট্রোলিয়াম জ্বালানীর মূল্যের উর্ধ্বগতির জন্য যদিও অনেকে বিশ্বাস করে বা বলে পরিবেশ দূষণের জন্য 'ক্লিন এনার্জী'র ব্যবহার বাড়াচ্ছে। আসলে তেলের সংকটই এই বিদ্যুতায়নের মূল কারণ। জ্বালানী তেলের সংকট বা কারণে মধ্যপ্রাচ্যে কি হচ্ছে তা কারো অজানা নয়। তেল নির্ভর সৌদী আরবও এখন অল্টারনেটিভ চিন্তা করছে সার্ভাইভ করার। 

বৈদ্যুতিক গাড়ীঃ এক হারানো প্রযুক্তি

বিদ্যুৎ বা ইলেক্ট্রিসিটি এমন এক শক্তি যা সবচেয়ে বেশি উপায়ে উৎপাদন ও রূপান্তর করা যায়। সৌরশক্তি, বায়ুশক্তি, তাপশক্তি, পেশিশক্তি, জল বিদ্যুৎ, জোয়ার-ভাটা, ঘর্ষশক্তি ইত্যাদি হাজারো উপায়ে বিদ্যুৎ তৈরী করা যায়। আর কতভাবে যে ব্যবহার করা যায় তার কোন ইয়াত্তা নেই। তাই পেশি, কয়লা ও তেলের পর সবচেয়ে নির্ভরযোগ্য জ্বালানী হবে বিদ্যুৎ। পারমানবিক শক্তি ব্যবহার ব্যয়বহুল ও বিপদজ্জনক হওয়াতে অনেক দেশই এড়িয়ে যাচ্ছে এটা।

আমরা জানি ঘোড়াগাড়ী ছেড়ে মোটরগাড়ীর প্রযুক্তি অগ্রসর হয় ঊনিশ শতকের শেষের দিকে। নিকোলাস অটো পেট্রল ইঞ্জিন ও রুডলফ ডিজেল ডিজেল ইঞ্জিন তৈরীর মাধ্যমে অটোমোবাইল ইন্ড্রাস্ট্রিতে বিপ্লব বয়ে যায়। এর আগে শুধুমাত্র কয়লাচালিত স্টীম ইঞ্জিনই চলতো রেল, জাহাজ ও কল-কারখানা।

কিন্তু সেই সময়ই ইলেক্ট্রিক গাড়ীর আবির্ভাব হয়। চমকে যাচ্ছেন? তাহলে শুনুন ১৮৯৯ সালে আমেরিকার 'বেকার মোটর ভেহিকল কোম্পানী' দুই সিটের ইলেক্ট্রিক কার বাজারে আনে। প্রথম ক্রেতা থমাস আলভা এডিসন। তিনি এই গাড়ীর কিছু মোডিফিকেশন করেন। ৬টি ১২ভোল্টের ব্যাটারী এই গাড়ীকে একবার চার্জ দিলে ১০০মাইল বা ১৬০ কিলোমিটার চলতে পারতো এবং স্পীড ঘন্টায় ১৪-২৫ মাইল হতো।

১৯১৪ সালে এক অজানা কারণে গাড়ীটির প্রোডাকশন বন্ধ হয়ে যায়। ধারণা করা হয় তেল ব্যবসায়ীদের জন্যই এমন হয় কারণ ইলেক্ট্রিক কার মার্কেট পেলে গত ১০০ বছরের অধিক সময় ট্রিলিয়ন ডলারের ব্যবসা হতো না দুনিয়ায়। এখন তেলে টান পড়াতে সেই পুরানো প্রযুক্তি ঘষে-মেঝে চালু করছে।

Source:
1) http://bit.ly/2iMbCXN
2) http://bit.ly/2jVTuhA

Photo: Baker Electric Car

লেখক পরিচিতিঃ 
লিখেছেনঃ NAZMUS SAKIB

লিখাটি ভালো লাগলে দয়া করে শেয়ার করুন। এমন আরও লিখা নিয়মিত পেতে EduQuarks এর সাথেই থাকুন। সবাইকে অনেক অনেক ধন্যবাদ।

No comments: